মাহে রমজান

রমজান মাস নেকি হাসিলের সুবর্ণ সুযোগ

রমজান মাস নেকি হাসিলের সুবর্ণ সুযোগ। দীর্ঘ এগারো মাস প্রতীক্ষার পর রমজানের ভালোবাসায় আমরা সকল মুসলমানই সিক্ত হলাম। মহান আল্লাহর এই অপার দান আমাদের জন্য বিশেষ রহমত। গোনাহ মাফ ও স্রষ্টার নৈকট্য লাভের অনন্য উপযোগি সময়। একজন মুসলমান-মুমিন বান্দার অন্তিম ইচ্ছা তো এটাই…!

প্রতিটি আদম সন্তানই শয়তানের ফাঁদে পড়ে গোনাহ করে। পৃথিবীর ইতিহাসে মানবজাতির প্রথম গোনাহটা শয়তানের ওয়াস-ওয়াসা থেকেই হয়েছিল। আজও আমরাও দুনিয়ার মোহে পড়ে সেই অভিশপ্ত শয়তানের কুমন্ত্রণায় গোনাহ করে থাকি।

কিন্তু রমজান মাস এমন একটি ফজিলতপূর্ণ মাস, এই মাসে অভিশপ্ত শয়তানকে মহান আল্লাহ তা’আলা শৃংখলিত করে দেন। ফলে সে আর মানব জাতিকে কুমন্ত্রণা দিতে পারে না। এই মহা-সুযোগে রমজানে মুমিনবান্দারা নেকির পাহাড় গড়ে তোলে।

রমজান এতটাই গুরুত্বপূর্ণ মাস, এই মাসের উসিলায় জাহান্নামের সকল দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়। তার একটি দরজাও খোলা হয় না। এমনিভাবে জান্নাতের সকল দরজা খুলে দেওয়া হয়, একটি দরজাও বন্ধ করা হয় না।

রমজান মাসে একজন রোজাদারের সমস্ত গোনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হয়। আর একজন মুমিনবান্দার প্রতিটা নেক আমলের ছওয়াব সত্তরগুণ বৃদ্ধি করা হয়।

প্রতিনিয়তই আল্লাহর নকীব ডেকে ডেকে বলেন, হে সৎকর্মকারীগণ! অগ্রসর হও, হে অসৎকর্মপরায়ণ! থেমে যাও। পবিত্র মাহে রমজানের উসিলায় মহান আল্লাহ তা’আলা প্রতি রাতে অসংখ্য জাহান্নামিকে মুক্তি দেন।

রমজান ফজিলতের অপার সমুদ্র কেন?

  • রমজান কুরআন নাজিলের মাস। কুরআন কি জানেন!? স্রষ্টার মুখের বাণী, তথা আসমানি কিতাব! এই কিতাবের একটি হরফ তিলাওয়াতের জন্য দশটি নেকি ধার্য করা হয়। আর রমজানের উসিলায় তা সত্তরগুণ বৃদ্ধি করা হবে। (সুবহানাল্লাহ)
  • রমজান মাসকে ফরজ রোজার মাধ্যমে বিশেষিত করা হয়েছে। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ যেভাবে ফরজ, মাহে রমজানের রোজাও তেমনিভাবে ফরজ।
  • রমজান মাসে অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি রাত আছে, যে রাতকে ’লাইলাতুল ক্বদর’ বলা হয়। লাইলাতুল ক্বদর এমন একটি রাত যা হাজার মাসের চেয়েও অধিক উত্তম।

রাসূলুল্লাহ (স.) বলেছেন, যে ব্যক্তি লাইলাতুল ক্বদর থেকে বঞ্চিত হলো, সে সমস্ত কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হলো। কেবল বঞ্চিত ব্যক্তিরাই তা থেকে বঞ্চিত হয়।

রমজানের ফজিলত বলে শেষ করা যাবে না। এটা স্রষ্টার মহত্বের কারিশমা। আমরা সকলেই আল্লাহর বান্দা। আমাদের উচিত, আমাদের পরওয়ার দিগারের হুকুম মেনে চলা।

রমজান মাস নেকি হাসিলের সুবর্ণ সুযোগ

প্রতিটি মানুষই নিজের দুনিয়াবি জীবন গঠনের কাজে ব্যস্ত। জিবিকা অর্জন ও স্বপ্ন পূরণের প্রতিযোগিতায় সারা বছর ব্যস্ততার মাঝে কেটে যায়। যার হেতু স্রষ্টার মনোরঞ্জনে আমরা বড়ই ঊদাসীন হয়ে থাকি।

কিন্তু রমজানে প্রায় সকলেরই ব্যস্ততা কম থাকে। এটা যে মহান আল্লাহ তা’আলার নিয়ামত, অস্বীকার করার যুক্তি নেই। এই সময়টাই হতে পারে বিচার দিনের মালিকের তোষামোদের দুর্দান্ত প্রতিযোগিতা।

তাই রমজানের একটি মিনিটও যেনো বৃথা হয়ে না যায়। আমরা সকলেই জানি, পৃথিবী আমাদের আসল ঠিকানা নয়। আমাদের যিনি সৃষ্টি করেছেন, আবার তাঁরই দিকে আমরা ফিরে যাব।আমাদের কৃতকর্মের জন্য অবশ্যই জিজ্ঞাসিত হবো।

মহান আল্লাহ আমাদের রমজানের পরিপূর্ণ বরকত দান করুন। আমাদের পাপ মার্জনা করুন। রমজানের হুকুম আহকাম পালন করার তাওফিক দান করুন। আমিন

Add comment