Google Adsense on the website

ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স পেতে যা যা করতে হয়

গুগল এডসেন্সকে অনেকেই সোনার হরিণ মনে করে থাকে! আসলে বিষয়টা এমনই কিছু। তবে একথাও সত্য যে, কিছু অর্জনের জন্য অবশ্যই শ্রম দিতে হয়। সাধনা করতে হয়। তারপর শ্রমের মূল্যটা অর্জনের জোয়ারে ফিরে আসে।

গুগল এডসেন্স নামক সোনার হরিণটাকে পেতেও অনেক সাধনার সাথে রাত-দিন কষ্ট করতে হয়। মানুষের কর্ম জীবনে এটা একটা বড় সাপোর্টার হিসেবে কাজ করে। একথা হয়ত কাউকে বলতে হবেনা। সকলেই জানেন।

বাস্তবে একটা সোনার হরিণ পাওয়া অতি দুর্লভ বিষয়। কিন্তু একটি ওয়েবসাইটে এডসেন্স নামক সোনার হরিণটা পাওয়া খুব জটিল কিছু নয়। এটা একজন লেখকের কাছে খুবই সহজ কাজ।

আজকের বিষয় হলো ‘ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স পেতে যা যা করতে হয়’। স্বাগতম ”আইটি নির্মাণ’’-এর নতুন একটি পিসডে। ওয়েবসাইটে এডসেন্স পাওয়ার দারুণ একটি টিপস আজ শেয়ার করতে যাচ্ছি। সাথেই থাকুন…।

Adsense on the website

ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স পেতে যা প্রয়োজন

১| ইউনিক কন্টেন্ট | একটি ওয়েবসাইট বিভিন্ন কন্টেন্টের সমন্বয়ে গঠিত হয়। এখানে থাকা চাই স্বকীয়তা। অর্থাৎ, প্রত্যেকটা কন্টেন্ট যেনো নিজের হয়। গুগলের ভাষায় যাকে ‘ইউনিক কন্টেন্ট’ বলা হয়।

আপনি যখন গুগল এডসেন্সে এপ্লাই করবেন, তারআগে অবশ্যই ওয়েবসাইটের প্রতিটা কন্টেন্ট ইউনিক হতেই হবে। এখানে কোনো প্রকার কপি কন্টেন্ট দেওয়া যাবে না। ওয়েবসাইটে কোনো প্রকার কপি কন্টেন্ট থাকলে কখনই এডসেন্স পাবেন না।

২| ফোর পেইজ| গুগল এডসেন্সে এপ্লাই করার আগে আপনার ওয়েবসাইটে অবশ্যই ৪ টা পেইজ তৈরি করতেই হবে।

  • Privacy policy
  • Terms and Conditions
  • About us
  • Contact us

তারপর এই পেইজগুলোতে ইনফরমেশন দিয়ে পূর্ণ করতে হবে। নাহয় এডসেন্স পাওয়া যাবে না।

৩| কন্টেন্ট | কন্টেন্ট বলতে অনেকই শুধু আর্টিকেল বুঝি। এটা নিত্যান্তই ভুল ধারণা। কন্টেন্ট বলতে লেখা, গ্রাফিক্স, ছবি, অডিও, ভিডিও ইত্যাদি সব কিছুকেই বুঝায়। তাই সকল কন্টেন্টই ইউনিক তথা কপিরাইটহীন হতে হবে। এই বিষয়গুলো আবশ্যকীয়। অবশ্যই সবগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখুন।

ওয়েবসাইটে সহজে এডসেন্স পাওয়ার পার্সোনাল কিছু টিপস

১| সাইড ম্যাপ | গুগল এডসেন্সে এপ্লাই করার আগে আপনার ওয়েবসাইটের ’সাইড ম্যাপ’ তৈরি করে নিন। তারপর সাইড ম্যাপটি গুগল কন্সোল-এর মাধ্যমে এড করুন। এতে করে গুগলের সার্চ ইঞ্জিন খুব সহজেই আপনার সাইটটি সম্পর্কে জানতে পারবে। তাই এটা করতে ভুলবেন না।

২| ইমেইল| গুগল এডসেন্সের জন্য এমন একটা ইমেইল নির্বাচন করুন, যেটা আগে কোথাও ব্যবহার হয়নি। প্রয়োজনে নতুন একটি ইমেইল খুলে নিন। এক্ষেত্রে আপনার পুরানো কোনো হিস্ট্রি গুগলের কাছে থাকবে না। সহজেই এডসেন্সটি এপ্রুভ পেতে সাহায্য করবে।

৩| ব্রাউজার নির্বাচন| গুগল এডসেন্সে এপ্লাই করার জন্য Google Chrome বা Mozilla Firefox ব্যবহার করুন। অবশ্যই এডসেন্সে এপ্লাই করার আগে ব্রাউজারের আগের হিস্ট্রিগুলো ডিলেট করে দিন।

এই বিষয়গুলোর দিকে লক্ষ্য রেখে এডসেন্সে এপ্লাই করুন। আশাকরি ১/২ দিনের ভেতরেই এডসেন্স পেয়ে যাবেন। এটা কঠিন কিছু নয়। স্টেপগুলো ফলো করে কাজ করাটাই চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার।

তবে এই বিষয়গুলো ’সোনার হরিণ’ তথা এডসেন্স প্রেমীদের জন্য কঠিন কিছু নয়। এভাবেই খুব সহজে আপনার ওয়েবসাইটে এডসেন্স পেতে পারেন।

======>> এই বিষয়ে আরো কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ

Add comment